ফটোশপ ও ইলাস্ট্রেটর এর মধ্যে পার্থক্য কি?

ফটোশপ ও ইলাস্ট্রেটর এর মধ্যে পার্থক্য কি?

ফটোশপ আর ইলাস্ট্রেটর প্রায় কাছাকাছি তবে এই দুটি সফটওয়্যার আলাদা আলাদা কাজে মূলত ব্যাবহার করা হয়। ক্ষেত্রবিশেষ দুটি সফটওয়্যার কিছু স্পেশালিটি রয়েছে।

ফটোশপ ও ইলাস্ট্রেটর এর মধ্যে পার্থক্য কি?

বেসিক ধারণা

ফটোশপের ক্যানভাসটা মূলত তৈরি হয় পিক্সেল দিয়ে আর ইলাস্ট্রেটর ক্যানভাসটা তৈরি হয় ভেক্টর ভিত্তিক।

ফটোশপ ও ইলাস্ট্রেটর এর মধ্যে পার্থক্য

ফটোশপ

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? জেনে নিন এর ইনকাম চাকরি ভবিষ্যতে।

সহজে ব্যবহার করা যায় ফটোশপ হল নাম্বার ওয়ান গ্রাফিক্স প্রোগ্রাম। এটি ফটো এবং রাস্তার ভিত্তিক আর্টওয়ার্ক তৈরি বা সম্পাদন করতে প্রায়ই অত্যাবশ্যক। এটি প্রথমে মূলত ছবি এডিটিং এর জন্য ব্যবহৃত হতো। তবে বর্তমানে একটি পরিবর্তিত এবং পরিবর্তিত হয় ওয়েব ইন্তেরফেইস, ডিজাইন, ওয়েব পেজ তৈরিতে ব্যবহৃত হচ্ছে। ফটোশপে আপনি পিক্সেল এর অংশ নির্ধারণ করে কাজ করতে পারেন।

মূলত অনলাইন ভিত্তিক যত গ্রাফিক্সের কাজ রয়েছে তার বেশিরভাগই ফটোশপ দিয়ে করা হয়।

সুবিধাসমূহ

  • এখানে অধিক পরিমাণে স্পেশাল ট্যুর স্পেশাল ইফেক্ট এবং স্পেশাল ফিল্টার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
  • এখানে প্রচুর কালার এবং ইমেজে বিভিন্ন বস্তুর প্রতিস্থাপন করতে পারবেন।
  • এটি ব্যবহার করে আপনার তোলা ছবিকে যেকোন প্রকার ইডিট করতে পারবেন।
  • আপনি আপনার প্রজেক্ট এর পিক্সেলবায় পিক্সেল সম্পাদন করতে পারবেন।

অসুবিধাসমূহ:

  • স্কল ড্রপডাউন এ ছবির কোয়ালিটি নষ্ট হয়।
  • প্রিন্ট ভিত্তিক ডিজাইনের তেমন ভালো রেজাল্ট পাওয়া যায় না।
  • ফটোশপে পিক্সেল বা রাস্টারভিত্তিক হওয়ায় লোগো তৈরি করা যায় না।
  • ফটোশপ দিয়ে প্যাক তৈরি করতে পারবেন কিন্তু টিপিক জল দিয়ে রিফিল হবে।

ইলাস্ট্রেটর

সাধারণ বিষয়

ইলাস্ট্রেটরে নাম অনুসারে কাজ। ভেক্টর ভিত্তিক ইলাস্ট্রেশনস তৈরি বা সম্পাদন করার জন্য ইলাস্ট্রেটর ব্যবহার করা হয়। যেমন: লোগো, ব্র্যান্ড এবং বিভিন্ন ডিজাইন এলিমেন্ট। ভেক্টর গ্রাফিক্স স্ক্যালাবল ইমেজ ,যেগুলো বিভিন্ন ধরনের আকার আকৃতির পরিবর্তন তাদের রেজুলেশন এবং স্বচ্ছতা বজায় রাখতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

সাধারণত যেসব গ্রাফিক্স প্রিন্ট করতে হয়,সেসব কাজ ইলাস্ট্রেটর দিয়ে করা হয়।

সুবিধাসমূহ

  • বিভিন্ন ধরনের কালার এবং ইমেজের বিভিন্ন প্রতিস্থাপন করতে পারবেন।
  • সহজে বিদ্যমান ছবিকে পরিবর্তন করতে পারবেন।
  • পৃথিবীর এমন কোন ডিজাইন নেই যেটি ইলাস্ট্রেটর দিয়ে আপনি করতে পারবেন না।
  • এটি ইমেজের স্বতন্ত্রতা বজায় রাখে। সহজে কোয়ালিটি নষ্ট হয় না অর্থাৎ রেজুলেশন নির্ভরশীল হয়।
  • এটা ইলাস্ট্রেটর দিয়ে তৈরি করার ডিজাইন যে কোন মাপের প্রিন্ট করা যায়।

অসুবিধাসমূহ

  • সহজে আগের ছবিতে পরিবর্তন করা যায় না।
  • ফটোশপের তুলনায় ফিল্টার এবং টুলস কম থাকে।

প্রফেশনাল ভাবে ব্যবহার

আপনি যদি একজন প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে চান সে ক্ষেত্রে অবশ্যই প্রথমে আপনাকে এডোবি ফটোশপ দিয়ে শুরু করতে হবে। কেননা এডোবি ফটোশপ এবং এডোবি ইলাস্ট্রেটর দুটি একই কোম্পানির সফটওয়্যার। এবং দুটি সফটওয়্যার এর মধ্যে অনেকাংশেই মিল রয়েছে।

আপনি যদি প্রথমে এডোবি ফটোশপ ভালো করে আপনার আয়ত্তে নিয়ে আসতে পারেন, সে ক্ষেত্রে এডোবি ফটোশপে কাজ করতে আপনার জন্য খুবই সহজ হবে।

যারা সাধারণত গ্রাফিক্স ডিজাইনিং ফ্রিল্যান্সিং করেন প্রথম পর্যায়ে এডোবি ফটোশপ নিয়ে কাজ করেন এবং পরবর্তীতে যখন তারা এক্সপার্ট হয়ে যান তখন এডোবি ইলাস্ট্রেটর দিয়ে সব কাজ সমাধান করার চেষ্টা করেন।

পরিশেষে বলা যায় যে ,ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটর একে অন্যের পরিপূরক। তাই আমাদের উচিত কাজের মৌলিক বিষয়টি বুঝে কাজ করা বা ব্যবহার করা।

একটি কথা দুইটি ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য যে একটি ডিজাইন সম্পূর্ণ করার ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন টুচ ব্যবহার করে পরিপূর্ণ ডিজাইন করা সম্ভব। আমি যদি আরও ক্লিয়ার করে বলি তাহলে আপনি আপনার ছবি বা বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য কিছু তৈরি করতে হলে ফটোশপ ব্যবহার করবেন। আর যদি কোন কিছু সরাসরি প্রিন্ট করতে চান সেটা যেকোন ডিজাইন হোক তবে ইলাস্ট্রেটর ব্যবহার করবেন।

আরও পড়ুনঃ

  1. গ্রাফিক্স ডিজাইনার এর ক্যারিয়ার গ্রো করবো কিভাবে?
  2. মোবাইল দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন করুন খুব সহজেই
  3. ফটোশপ টুলস পরিচিতি
Leave a Reply

Shopping cart

0
image/svg+xml

No products in the cart.

Continue Shopping
x